সর্বশেষঃ
ডেইলি অনলাইন বাংলাদেশ ২৪.কম এর পক্ষ থেকে ঈদ শুভেচ্ছা[][][]ভান্ডারিয়াবাসীকে পবিত্র ঈদুল-ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন এহসাম হাওলাদার[][][]মেট্রোরেলের নির্মাণকাজের অগ্রগতি ৬৩ ভাগ : সেতুমন্ত্রী[][][]ভান্ডারিয়া উপজেলাবাসীকে চেয়ারম্যান মিরাজুল ইসলামের ঈদ উপহার[][][]খালেদার চিকিৎসা নিয়ে সরকার খোড়া যুক্তি দিচ্ছে : মির্জা ফখরুল[][][]নাজিরপুরে লকডাউনে কিস্তি আদায়! বিপাকে গ্রাহক[][][]ভান্ডারিয়াবাসীকে পবিত্র ঈদুল-ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বিএনপির নেতা ম.মহিউদ্দিন খান দিপু[][][]ঐতিহাসিক শোলাকিয়ায় ঈদের জামাত হচ্ছে না[][][]দেশে করোনায় মৃত্যু ১২ হাজার ছাড়াল[][][]কাউখালীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ইলেকট্রিশিয়ানের মৃত্যু

মঠবাড়িয়ায় ভূয়া ডিসিআর দেখিয়ে মুক্তিযোদ্ধার জমি দখল করে পাকাঘর নির্মাণ

মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধি :

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া পৌরশহরের পূর্ব লেন এলাকায় ভূয়া ডিসিআর দেখিয়ে এক মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের বসত বাড়ির জমি জোরপূর্বক দখল করে পাকাঘর নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে। এ ঘটনার প্রতিকার চেয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে মঠবাড়িয়া মুক্তিযোদ্ধা বহুমূখী সমবায় সমিতি কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ভূক্তভোগি পরিবারটি।

এসময় লিখিত বক্তব্যে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সহ-সভাপতি ও ইউপি সদস্য ওয়াদুদ শিকদার পিরু বলেন, তার পিতা মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা আঃ আজিজ শিকদার মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করায় ১৯৯১ সনে সরকার শহরের বকসির ঘটিচোরা মৌজা থেকে ৮ শতাংশ জমি দলিলের মাধ্যমে চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত দেয়। পরবর্তীতে আদালত পাকা পিলার বসিয়ে সীমানা নির্ধারণ করে দেন। এরপর মুক্তিযোদ্ধা পরিবারটি উক্ত জমিতে বসবাস করে আসছে।

কিন্তু মঠবাড়িয়া পৌরসভার সাবেক কমিশনার আঃ কুদ্দুস মৃধা পেশীশক্তির জোরে ওই জমি দখলের পায়াতারা চালিয়ে আসছিল। একপর্যায়ে আঃ কুদ্দুস মৃধা তাদের ডিগ্রি প্রাপ্ত জমির দাগ পরিবর্তন করে একটি ভূয়া ডিসিআর তৈরি করেন। পরে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) অফিসে অভিযোগ দিলে ওই ডিসিআর বাতিল করে দেয়।
তিনি আরও বলেন, ১১ এপ্রিল স্থগিত হওয়ায় নির্বাচনী কাজে এলাকায় ব্যস্ত থাকার সুযোগে কুদ্দুস মৃধা আমাদের জমি অবৈধভাবে দখল করে পাকা ভবন নির্মাণ করেন। পরে

বাঁধা দিলে কুদ্দুস মৃধা ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী দিয়ে বিভিন্নভাবে হয়রানী করে আসছে। এনিয়ে মঠবাড়িয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগও দায়ের করা হয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা পুলিন বিহারী সাওজাল, মো. ফকর উদ্দিন, মতিয়ার রহমান,রুস্তুম আলী, রুহুল আমিন টুকু, সিদ্দিকুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সহ-সভাপতি মনিরুজ্জামান আবু প্রমূখ।
এ ব্যপারে সাবেক কমিশনার আঃ কুদ্দুস মৃধার সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। মঠবাড়িয়া থানার ওসি মাসুদুজ্জামান বলেন, তদন্ত করে প্রযোজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

0Shares